1. admin@bsalnewsonline.com : admin :
  2. alexpam3107@gmail.com : Alexkanda :
  3. m.shulgin@max.enersets.com : Briannaw :
  4. editor@dailyekattorjournal.com : জাকির আহমেদ : জাকির আহমেদ
  5. zakirahmed0112@gmail.com : Rayhan : Rayhan Chowdhury
  6. vroglina@mail.ru : IsaacCliet :
  7. politika.video1@gmail.com : lavongell73 :
  8. marcia-tedbury18@lostfilmhd720.ru : marciatedbury :
  9. rayhanchowdhury842@gmail.com : Rayhan :
  10. m.r.rony.007@gmail.com : rony : MahamudurRahm Rahman
  11. ki.po.n.io.m@gmail.com : roxanaaronson3 :
  12. carol-jean@h.thailandresort.asia : suzannabolling1 :
সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০৪:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
কালীগঞ্জে গ্রামীণ ব্যাংকের জোরপূর্বক কিস্তি আদায়ের অভিযোগ। নরসিংদীর আলোকবালিতে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৬ আহত ২০ দিনাজপুরে আত্রাই নদীতে গোসল করতে নেমে শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মোরতবা আলী মানিক আর নেই মেডিকেলে ভর্তির স্বপ্ন পূরণে মেধাবী লিমনের পাশে দাঁড়ালেন শিক্ষক টিএম মনোয়ার হোসেন গংগাচড়ায় তিস্তা থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার সময় মেশিন জব্দ নরসিংদীর ঘোড়াশালে ঈদের তৃতীয় দিনেও কমছেনা দর্শনার্থীদের ভীর প্রজনন মৌসুমে ডিমওলা মাছ রক্ষায়,থানা পুলিশের বিশেষ অভিযান সোনামসজিদে বন্দরে আমদানী-রফতানী কার্যক্রম শুরু হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জে নতুন করে ১৮ জনের দেহে করোনা শনাক্ত

সরকার লকডাউন তুলে দিন পেটের জ্বালায় আর বাঁচিনা।

  • Update Time : শনিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ২১ বার পড়া হয়েছে

একের পর এক লকডাউনে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবৃও মানুষদের দুঃখ ও কষ্ট দিনের পর দিন বেড়েই যাচ্ছে। ২য় কঠোর সাতদিনের টানা লকডাউনে দিনমজুর, রিকশাচালক ও দিন এনে দিন খাওয়া লোকদের কষ্টের পরিমান বেড়েই চলছে। আজ সকালে অনেক দিনমুজুররা রোজা রেখে কাজের আশায় খুব সকাল ৭টা এসে ভীড় জমায় প্রতিদিনের মতোই। কিন্তুু,২য় লকডাউন ১ম লকডাউনের চেয়ে অনেক অংশে কঠোর হওয়ায় সব দিনমুজুরদের কে ফিরতে হয় খালি হাতে। লকডাউন কঠোর হওয়ায় কেউ কোন কাজের জন্য তাঁদের নিয়ে যেতে আসেনি বা তাঁরা কাজ পাননি।

প্রায় সকল দিনমুজুররা চলে গেলে ও কিছু কিছু দিনমুজুর কষ্টে আকুতি ও কান্না শুরু করে দেয়। এমন তাই দেখা মিলল ভোলা জেলা শহরের ঘুইংগার হাট বাংলাবাজার এলাকায় দিনমজুর খেটে খাওয়া মানুষের গুঞ্জন ও রাহাজানি।

সকালে কাজ করতে এসে দুপুর বেলা ১২.৩০ এ তাঁরা এমন আকুতি করে কাঁদতে থাকে দেখা মিলে কয়েকজন দিন মজুর শ্রমিক তারা কান্না করছে আর বলছে,
আজ কোন কাজ পায়নি।আজ কয়েকদিন ধরে কাজ তেমনটা নেই, এখন লকডাউনে কেউ কাজে নিচ্ছে না আমরা দিন ইনকাম করে।
এখন যদি আমরা কাজ করতে না পারি তাহলে আমাদের না খেয়ে মরতে হবে।
এই মহামারী করোনাভাইরাস আমাদের শুধু দুঃখই দিতে এসেছে আমরা এখন কী করবো। কোন জায়গায় যাব কি করে খাব।আমাদের তো সরকারি চাকরির মতো বেতন নির্ধারিত নেই।দিন এনে দিন খাই।জমানো টাকা ও নেই। ত্রাণ ও পাইনা আমারা। আমরা খাব কি?সরকার লকডাউন তুলে নিন।আমাদের বাঁচান।আমরা তো খেতে না পেয়ে মারা যাব।

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.

More News Of This Category