1. admin@bsalnewsonline.com : admin :
  2. alexpam3107@gmail.com : Alexkanda :
  3. editor@dailyekattorjournal.com : জাকির আহমেদ : জাকির আহমেদ
  4. zakirahmed0112@gmail.com : Zakir Ahmed : Zakir Ahmed
  5. vroglina@mail.ru : IsaacCliet :
  6. politika.video1@gmail.com : lavongell73 :
  7. marcia-tedbury18@lostfilmhd720.ru : marciatedbury :
  8. rayhanchowdhury842@gmail.com : Rayhan :
  9. m.r.rony.007@gmail.com : rony : MahamudurRahm Rahman
  10. ki.po.n.io.m@gmail.com : roxanaaronson3 :
সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০২:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
কিশোরগঞ্জে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। নরসিংদীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-১, আহত সুনামগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যানসহ-৫ গাইবান্ধায় অধিকাংশ ফার্মেসিতে নেই ফার্মাসিস্ট ও লাইসেন্স গোবিন্দগঞ্জে বিশ্ব ‘মা’ দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত গংগাচড়ায় শপিং এর টাকা না পেয়ে নববধূকে খুন করল স্বামী উলিপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শিশুসহ দুজনের মৃত্যু দিনাজপুরে ২নং ওয়ার্ডে ঈদ উপহার খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন কাউন্সিলর কাজী আশরাফউজ্জামান (বাবু) রংপুরে অসহায় এক কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিল ছাত্রলীগ হরিপুরে বজ্রপাতে নারীর মৃত্যু

বিশুদ্ধ পানির ফিল্টার নিজেই যখন রুগী।

  • Update Time : শনিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০১৯
  • ২২ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার।

পটুয়াখালী সদর হাসপাতালের পানির ফিল্টার নিজেই রুগী হয়েছে। প্রায় তিন মাস পূর্বে বর্তমান বাজার দরের প্রায় পাঁচ গুন বেশি দামে মোট ২৪টি পানির ফিল্টার রুগীদের বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের লক্ষ্যে হাসপাতালের অফিস সহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে স্থাপন করা হয়। কিন্তু কিছু দিন না-যেতেই সবগুলো পানির ফিল্টার অকেজো হয়ে যায়।

রুগী দের বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের জন্য একটি মাত্র ডিপ টিউব ওয়েল ব্যবহার করতে হচ্ছে। দেখা গেছে সে টিউবওয়েলটি বেশিরভাগ সময় নস্ট থাকে। ফলে রুগী দের ভোগান্তি চরমে পৌছেছে।

জানাগেছে প্রতিটি ফিল্টার বর্তমান বাজারে সর্বোচ্চ ১৩ হাজার টাকায় পাওয়া গেলেও অদৃশ্য কারনে প্রতিটি ফিল্টার প্রায় ৬৬ হাজার টাকায় ক্রয় করা হয়। এ বিষয় সরবরাহকৃত ডিপার্টমেন্ট PWD বলছে কিছু দিন পূর্বে হাসপাতালের চাহিদা অনুযায়ী এগুলো সরবরাহ করা হয়েছে। এত তারাতারি অকেজো হওয়ার বিষয় কোন মন্তব্য করেনি।

তবে তারা বলছে অভিযোগ পেলে ফিল্টার গুলো পরিবর্তন করা হবে। এ বিষয় ইতিপূর্বে বিভিন্ন গণমাধ্যমে রিপোর্ট প্রকাশ হোলেও অদৃশ্য কারনে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিরব ভূমিকা পালন করছে। পটুয়াখালী সদর হাসপাতালে বরগুনা, কুয়াকাটা, কলাপাড়া গলাচিপা সহ প্রায় দুজেলার রুগীরা চিকিৎসা নিতে এখানে আসেন।

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল হোলেও এখানে রুগীর চাপ অনেক বেশি। হাসপাতালে পানির ফিল্টার সহ একাধিক সমস্যায় জর্জরিত,রুগী দের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নেয়া সহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে হাসপাতালের বিরুদ্ধে। এ বিষয় কথাবলতে চাইলে হাসপাতালের দায়ীও প্রাপ্ত কোন কতৃপক্ষকে পাওয়া যায়নি।

বিশেষজ্ঞরা মনে করছে এগুলো শুধুমাত্র কতৃপক্ষের অবহেলা ছারা কিছুই নয়। বিশেষজ্ঞরা আরও বলেন হাসপাতাল এমন একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান যেখানে মানুষ চিকিৎসা নিতে এসে ভালো হয়ে বাড়ী ফেরার কথা থাকলেও এখানে তেমনটা দেখা যায় না।

বরং গ্রামের নিরিহ গরীব রুগীরা আসলেই তাদেরকে বিভিন্ন ক্লিনিক বা বরিশাল হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। যা শুধুমাত্র কতৃপক্ষের অবহেলা, এ ছারা ডাঃ সেলিম মাতুব্বর কোন মারামারির রুগী আসলেই তাদেরকে বাধ্যতা মূলক সিটিস্ক্যান করায়।

যা গরীব অসহায় রুগীদের পক্ষে অসম্ভব হলেও করাতে বাধ্য করে। এ ছারা ডাঃ সহ একধরনের অসাধু কর্মচারিরা বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা করাতে বাধ্য করে, বিষয়টি এখনই সমাধান করা নাহলে আগামীতে আরও ক্ষতির সম্মুখীন হবেন খেটে খাওয়া গ্রামের অসহয় দরিদ্র জনগোষ্ঠী।

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.

More News Of This Category