English|Bangla আজ ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার দুপুর ১:০৬
শিরোনাম

বিপিএলে দল পেলেন আশরাফুল

মোহাম্মদ আশরাফুলের পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা কেটেছে গত আগস্টেই। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে তিনি খেলে আসছিলেন এক বছর আগে থেকেই। তবে নিষিদ্ধ ছিলেন আন্তর্জাতিক এবং ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে। এবার পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা মুক্ত হওয়ায় নাম উঠেছিল বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটে। এবং দলও পেয়ে গেলেন। ষষ্ঠ আসরে চিটাগাং ভাইকিংসের হয়ে খেলবেন বাংলাদেশের সাবেক এই অধিনায়ক।

বিপিএলে ‘বি’ ক্যাটাগরিতে ছিলেন আশরাফুল। দুপুর ১২টায় ড্রাফট শুরু হওয়ার পর সপ্তম কলে তাকে দলে টানে চিটাগাং ভাইকিংস।

বিপিএলে দল পাওয়ায় এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পথ সুগম হলো আশরাফুলের। ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো পারফর্মেন্সের কারণেই বিপিএলে দল পেয়েছেন তিনি। এবার বিপিএলে নজন কাড়ার পালা।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে বিপিএলেই ম্যাচ ফিক্সিংয়ের কারণে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন আশরাফুল।

বিপিএল প্লেয়ার্স ড্রাফট : শুরুতেই দল পেলেন যারা

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসরের প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠিত হচ্ছে হোটেল রেডিসনে। সাতটি ফ্র্যাঞ্চাইজি, আইকন এবং কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে দুপুর ১২টায় প্লেয়ার ড্রাফট শুরু হয়। এ পর্যন্ত ২৮ জন ক্রিকেটার দল পেয়েছেন। প্রথম ডাকেই দল পেয়েছেন সৌম্য সরকার, রুবেল হোসেন, আবু হায়দার রনি ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

গত আসরে রাজশাহীর আইকন ছিলেন সৌম্য সরকার। তবে এবার আইকন তালিকায় ছিলেন না তিনি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তৃতীয় ম্যাচে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি হাঁকানো এই ব্যাটসম্যানকে তাই সুযোগ বুঝে প্রথম ডাকেই তাকে দলে নিয়েছে রাজশাহী।

অসুস্থতার কারণে জিম্বাবুয়ের ওয়ানডে সিরিজে খেলতে পারেননি পেসার রুবেল হোসেন। তবে এশিয়া কাপে তার পারফরমেন্সকে নজরে রেখে দলে ভিড়িয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস।

গত আসরে ঢাকা ডায়নামাইটসে ছিলেন পেসার আবু হায়দার রনি। এবার আর তাকে ধরে রাখতে পারেনি দলটি। তাকে দলে ভিড়িয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতও গত আসরে ছিলেন ঢাকা ডায়নামাইটসে। এবার তাকে দলে টেনে নিয়েছে চিটাগাং ভাইকিংস।

বাকি যারা দল পেয়েছেন –

১. জহুরুল ইসলাম (খুলনা টাইটানস)
২. আফিফ হোসেন (সিলেট সিক্সার্স)
৩. শফিউল ইসলাম (রংপুর রাইডার্স)
৪. সোহাগ গাজী (রংপুর রাইডার্স)
৫. এনামুল হক (কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস)
৬. তাসকিন আহমেদ (সিলেট সিক্সার্স)
৭. নুরুল হাসান (ঢাকা ডায়নামাইটস)
৮. আবু জায়েদ (চিটাগং ভাইকিংস)
৯. ফজলে রাব্বি (রাজশাহী কিংস)
১০. শরিফুল ইসলাম (খুলনা টাইটানস)
১১. ফরহাদ রেজা (রংপুর রাইডার্স)
১২. আরাফাত সানি (রাজশাহী কিংস)
১৩. সৈয়দ আহমেদ (চিটাগং ভাইকিংস)
১৪ আল আমিন হোসেন (সিলেট সিক্সার্স)
১৫. রনি তালুকদার (ঢাকা ডায়নামাইটস)
১৬. তাইজুল ইসলাম (খুলনা টাইটানস)
১৭. মেহেদি হাসান (কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস)
১৮. জিয়াউর রহমান (কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস)
১৯. মোহাম্মদ আল আমিন (খুলনা টাইটানস)
২০. শুভাগত হোম চৌধুরী (ঢাকা ডায়নামাইটস)
২১. তৌহিদ হৃদয় সিলেট সিক্সার্স)
২২. নাঈম হাসান (চিটাগং ভাইকিংস)
২৩. আলাউদ্দিন বাবু (রাজশাহী কিংস)
২৪. মেহেদী মারুফ (রংপুর রাইডার্স)

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো