English|Bangla আজ ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার দুপুর ২:৫৩
শিরোনাম

বাসে অতিরিক্ত ভাড়া দাবি করায় ৯৯৯ ভুক্তভোগীর ফোন ২মিনিটেই ব্যবস্থা নিলেন তারাকান্দা থানার পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার : নীহার বকুল।

বৈশ্বিক মহামারি করোনা (কোভিড-১৯) ভাইরাস পরিস্থিতিতে শারিরিক দূরত্ব বজায় রাখতে সীমিত যাত্রী নিয়ে চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয় গণপরিবহন গুলোকে। প্রতি দুইটি আসনের মাঝে একটি আসন ফাঁকা থাকার শর্তে গণপরিবহনের ভাড়াও বৃদ্ধি করা হয় ৬০ শতাংশ পর্যন্ত। তবে বাড়তি ভাড়া বহাল থাকলেও শারীরিক দূরত্ব মানার বালাই নেই ঢাকা/ময়মনসিংহ টু হালুয়াঘাট রোডের গণপরিবহন গুলিতে।

সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক ভাড়া ৬০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হলেও তথাপি বাসে অবশ্য যাত্রীদের ভাড়া গুনতে হচ্ছে প্রায় দ্বিগুণ হারে।

হালুয়াঘাট থেকে ময়মনসিংহে যাবার আগের সিটিং গেইটলক ভাড়া ছিল ৫০ টাকা।বর্তমানে তা ৬০ শতাংশ অতিরিক্ত ভাড়াসহ এই রুটের ভাড়া হার আসে ৮০ টাকা মাত্র।কিন্তু সেখানে প্রতি দুইটি আসনে একটি আসন ফাঁকা থাকার শর্ত থাকলেও তা না মেনে প্রতি সিটে ভাড়া নিচ্ছেন তারা ১০০টাকা।যদি কেউ এ ব্যাপারে প্রতিবাদ করে তাহলে তাকে গুনতে হয় ২০০ টাকা।

এ বিষয়টি নজরে আসে হালুয়াঘাট উপজেলা সদরের বাসস্টেশন এলাকা থেকে ঐ বাসে উঠা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিনান্স বিভাগের মাস্টার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী এনামুল হাছান নাহিদ সহ-সভাপতি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ,সূর্যসেন হল শাখার একজন সচেতন ছাত্র নেতার।

ভুক্তভোগী নাহিদ বাসের স্টাফদের অনিয়ম দেখে তাৎক্ষণিক তিনি প্রতিবাদ জানান।প্রতিবাদে কোন কাজ না হওয়ায় তিনি সরাসরি ফোন করেন ৯৯৯ হেল্পলাইনে।সাথে সাথেই বাসটি ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা উপজেলা এলাকায় পৌঁছালে তারাকান্দা থানা পুলিশ বাসটির পথরোধ করে বাসে তল্লাশি চালিয়ে ও যাত্রীদের কাছে জিজ্ঞাসাবাদ করে সত্যতা পেয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেন।

এ ব্যাপারে তারাকান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল খায়ের জানান,সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সবার জন্য নির্ধারিত ভাড়ার অতিরিক্ত ভাড়া কোনক্রমেই নেওয়া যাবেনা তা সবাইকে অবগত করাই। এ ব্যাপারে ড্রাইভার ও সুপারভাইজার তাদের ভুল স্বীকার করে ভবিষৎ এমন কাজ করবেনা,অতিরিক্ত যাত্রী উঠানো হবেনা বলে মুচলেকা দিলে, যাত্রীদের গন্তব্যের কথা ভেবে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

বিষয়টি নিয়ে এই প্রতিনিধিকে ভোক্তভোগী এনামুল হাছান নাহিদ জানান, আমি বাসে উঠে দেখি সামাজিক দুরত্ব তো অনেক পরের বিষয়,বাসে মাত্রাতিরিক্ত যাত্রি পরিবহণ করা হচ্ছে। আমি বাসে উঠে ১০০ টাকা ভাড়া দিলাম।যেখানে রেগুলার ভাড়া ৫০ টাকা,নিয়মানুযায়ী আমি দুই সীটের ভাড়া দিয়েছি,কিন্ত কিছুদূর যাওয়ার পর আমার পাশে যাত্রী বাসানোর জন্য আসেন বাসের সুপারভাইজার,আমি তাকে বাঁধা প্রদান করলে উনি আমাকে ২০০ টাকা ভাড়া দিতে বললেন,যা ছিলো খুবই কষ্টকর ও অমানবিক। সুপারভাইজার আমার আশেপাশের যাত্রিদের সাথে একই আচরণ করতেছিল,বলছিলো যে,দুই সিটে দুজন বসবেন কিন্ত ভাড়া দিগুন দিতে হবে, তিনি স্ববভাবসুলভ যথারীতি খারাপ আচরণ করছিলেন,এই লাগামহীন দুর্নীতি আর অনিয়মের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে আমি ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে নিজের পরিচয় দিয়ে তাৎক্ষণিক বিস্তারিত বললাম,বলার পর বাসের লোকেশন জানতে চাইলো,আমি লোকেশন জানালে তারপর তারাকান্দা থানার সামনে থেকে বাসটিকে তারাকান্দা থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে আমাকে সাথে নিয়ে, ড্রাইভার ও সুপারভাইজার কে থানায় নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আটক করেন।

তিনি আরো বলেন,আমার এই পদক্ষেপে খুব বেশি পরিবর্তন হয়তো হবেনা কিন্ত বাসে থাকা ভুক্তভোগী মানুষের চোখে মুখে যে খুশি দেখেছি তাতে আমি অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি তারাকান্দা থানার পুলিশ প্রশাসন কে।এভাবেই সবাই যদি আমরা অন্যায়ের বিরোদ্ধে প্রতিবাদ করি তাহলে সকল অনিয়ম প্রতিহত করা যাবে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো