English|Bangla আজ ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার সকাল ৯:০৭
শিরোনাম
কুড়িগ্রামে সেকেন্দার বীজ হিমাগারে নতুন আলু সংরক্ষনে দোয়া ও মিলাদগাইবান্ধায় জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিতখানসামায় সরক দুর্ঘটনায় মটর সাইকেল আরোহীর মর্মান্তিক মৃত্যু।ঠাকুরগাঁও নাগরিক কমিটির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিতকুড়িগ্রামে রাস্তা সংস্কার কাজের উদ্বোধন করলেন সংসদ সদস্য আলহাজ্ব পনিরউলিপুরে ট্রাক চাপায় শিশুর মৃত্যুবঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে লাউডোব ইউনিয়ন আ’লীগের আলোচনা সভা:নবীনগরে মুজাক্কির হত্যার বিচার চেয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন নবীনগর থানা প্রেসক্লাব।নওগাঁয় সকালে তালিকা থেকে বাদ ॥ দুপুরে মৃত্যু ॥ বিকেলে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন ॥ এলাকায় আলোচনার ঝড়পলাশবাড়ীতে প্রমীলা প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

বাকেরগঞ্জে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ছুরিকাঘাতে কলেজ ছাত্র নিহত, গ্রেফতার-৯

ডেক্স রিপোর্টঃ
বরিশালের বাকেরগঞ্জের ছোট পুইয়াউটা গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ছুরিকাঘাতে এক কলেজছাত্র নিহত হয়েছে। নিহত সজিব কারিকর উপজেলার সরকারি বাকেরগঞ্জ কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী। এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক শুভ্রত সরকার (১৮) সহ ৯জনকে আটক ও রক্তমাখা ছুঁড়ি উদ্ধার করেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এলাকা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার নিয়ামতি ইউনিয়নের ছোট পুইয়াউটা গ্রামের নিহত সজিব কারিকরের পিতা রাজ্জাক কারিকরের সাথে একই গ্রামের পরিমল সরকার ও সকানাথদের সাথে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলছে। গতকাল ২২ ডিসেম্বর রোববার সকাল সাড়ে ৭টার সময় সকানাথরা ওই বিরোধীয় জমির মাটি কাটে। এ খবর জানতে পেরে নিহত সজিবের চাচা তৈয়ব আলী কারিগর ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের মাটি কাটতে বাধা দিলে সকানাথ ও পরিমল সরকাররা ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে তার উপর হামলা করে।

এই ঘটনা শুনে নিহত সজীব তার চাচাতো বোন সাজেদা ও ভগ্নিপতিকে নিয়ে তাকে বাঁচাতে গেলে বখাতে শুভ্রত সরকার তার বুকে ছুরিকাঘাত করে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। নিহত সজিবের লাশ পোস্টমর্টেমের জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মূল ঘাতক শুভ্রত সরকারসহ ৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নিহত সজীবের চাচাতো বোন সাজেদা বেগম (৩৪) ও ফুফু রাজিয়া বেগম (৩৫) জানান, তাদের সামনেই ঘাতক শুভ্রত কলেজ নিহত সজীবকে ছুরি মেরে রক্তাক্ত করে। এ সময় পবিত্র নামের একটি ছেলে ভিডিও করছিল।

তারা সজিবকে বাঁচানোর জন্য বারবার অনুরোধ জানালেও সে কোন কর্ণপাত না করে হত্যাকান্ডের ভিডিও করে। সাজেদা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাংবাদিকদের নিকট হত্যাকাণ্ডের সহায়তার অভিযোগে ভিডিও ধারণকারী পবিত্রকে আটক করে ওই ভিডিও উদ্ধারের দাবি জানান।

ঘটনার পরপর বরিশালের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আব্দুর রকিব পিপিএম ও সহকারী পুলিশ সুপার সদর সার্কেল আনোয়ার সাঈদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আব্দুর রকিব পিপিএম সাংবাদিকদের জানান, কলেজ ছাত্র সজীবের হত্যাকারী কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। অপরাধী যেই হোক তাকে আইনের আওতায় এনে বিচারের মুখোমুখি করা হবে।

এ ঘটনা যাতে কেউ ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে না পারে সেজন্য তিনি উপস্থিত সাংবাদিক ও স্থানীয়দের সহযোগিতা কামনা করেন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো