English|Bangla আজ ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার বিকাল ৩:০৬
শিরোনাম

পীরগঞ্জে মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে ভুয়া সনদ তৈরীর অভিযোগ

আল কাদরি কিবরিয়া সবুজ, (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

পীরগঞ্জের ধর্মদাসপুর আমিনিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে ভুয়া সনদ তৈরীর মাধ্যমে এক শিক্ষিকাকে চাকুরি দেয়ার অভিযোগে উপজেলা
নির্বাহী কর্মকর্তাসহ উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। অভিযোগটি করেন উক্ত মাদ্রাসায় নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষিকা ফেরদৌসি আক্তার।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তাঁতারপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফার স্ত্রী ফেরদৌসী আক্তারকে উক্ত মাদ্রাসার সুপার জুনিয়র শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়ার প্রস্তুতি ও সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু ফেরদৌসি আক্তারের
এনটিআরসি এর সনদ না থাকায় তিনি প্রারম্ভিকভাবে তাতে অসম্মতি জানায়। তারপরেও মাদ্রাসার সুপার নজরুল ইসলাম এনটিআরসি এর সনদ ও বেতন ভাতাসহ যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করার অঙ্গিকারে ঐ শিক্ষিকার নিকট থেকে ৭ লাখ টাকা গ্রহণ করেন। সুপার টাকা প্রাপ্তির পর বিগত ২৩/১০/১১ইং ফেরদৌসি আক্তারকে ধর্মদাসপুর আমিনিয়া দাখিল মাদ্রাসায় জুনিয়র শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ প্রদাণ করেন। নিয়োগ প্রপ্তির পর থেকে ফেরদৌসি আক্তার মাদ্রাসাটিতে শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। কিন্তু
দীর্ঘদিনেও ফেরদৌসি আক্তারের বেতন ভাতাদির ব্যবস্থা হয়নি। উপরোন্ত বিল ভাতাদি হবে না মর্মে ফেরদৌসিকে জানানো হয়। এদিকে বিষয়টি জানার পর ফেরদৌসি আক্তার উক্ত সুপারের কাছে প্রদেয় টাকা ফেরৎ চাইলে তিনি বিভিন্ন অজুহাতে টাকা ফেরত দিতে অস্বীকৃতি
জানান। ফলে মানষিকভাবে বিপর্যস্থ ফেরদৌসী আক্তার এ অভিযোগ দাখিল করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সুপার নজরুল ইসলামের সঙ্গে মোবাইলে কথা হলে তিনি টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো