English|Bangla আজ ২৩শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার ভোর ৫:৫৯
শিরোনাম
লক্ষ্মীপুর-২ সংসদ উপনির্বাচন: নৌকার প্রার্থীর বিজয়পত্নীতলায় সরকারি নির্দেশনা না মানায় ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানাপলাশবাড়ীর হোসেনপুর ইউনিয়নে ভিজিডি কার্ডধারীদের মাঝে চাল বিতরণনরসিংদীতে পলাশের ডাংগা ইউনিয়নে আ.লীগ প্রার্থী ও গজারিয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর জয়লাভতাহিরপুর অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায় এক লক্ষ টাকা জরিমানাসিএমপি’র স্কুল এন্ড কলেজকে নিটল মটরস লিমিটেড কর্তৃক ০১টি পরিবহন বাসের চাবি সিএমপি পুলিশ কমিশনার মহোদয়কে হস্তান্তর অনুষ্ঠানকুমিল্লা সদরের উঃকালিয়াজুরী কোড়ের পাড়ের রাস্তাটি আবাও দখল মুক্তদাউদকান্দিতে স্বামীকে ভিডিও কলে রেখে স্ত্রী’র আত্মহত্যা!একটু মাথা গোঁজার ঠাঁই খোঁচ্ছে রোকিয়ারায়পুরে পুকুরে ডুবে এসএসসি পরীক্ষার্থীর মৃত্যু

তাহিরপুরে পোনামাছ নিধন ও বিভিন্ন হাটবাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি

আহাম্মদ কবির তাহিরপুর

দেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট মা মাছের অভয়ারণ্য খ্যাত টাঙ্গুয়ার হাওরসহ তাহিরপুর উপজেলার বিভিন্ন হাওরে- হাওরে চলছে অবাধে লাটি মাছের পোনা সহ বিভিন্ন প্রজাতির পোনামাছ নিধন ও বিভিন্ন হাটবাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি । সরেজমিনে ঘুরে জানাযায় উপজেলার মাটিয়ান,বনুয়ার হাওর ফালইর হাওর,ফানার হাওর, সমসার হাওর সহ বিভিন্ন ছোট-বড় হাওর জলাশয় ও নদী নালার পানিতে পোনা মাছ নিধন করছে এক শ্রেণীর অসাধু মৎস্য আহরানকারীরা। নিধনকৃত পোনা মাছের মধ্যে রয়েছে টাকি, সোল, গজার। মশারীর জাল দিয়ে ঠেলা জালি বানিয়ে নিধন করছে টাকি, সোল ও গজারের পোনা অপর দিকে ছাই দিয়ে বাঁধ দিয়ে ও কোনাজাল দিয়ে নিধন করছে টেংরা ও বিভিন্ন প্রজাতির ছোট মাছের পোনা। সম্প্রতি কমিউনিটি গার্ডের সদস্যরা অভিযান চালিয়ে পোনামাছ সহ চারপাঁচটি পোনামাছ ধরার মশারি টেলাজাল আটক করলেও থামছে না তাদের পোনামাছ নিধন। প্রতিদিনই পোনামাছ নিধন করে দেধারছে বিক্রি করছে উপজেলার বিভন্নি হাট বাজারে।প্রতি কেজি টাকি কিংবা সোল মাছের পোনা বিক্রি হচ্ছে ২শ থেকে ৩শ টাকা আর প্রতি কেজি টেংরা কিংবা অন্যান্য মাছের পোনা বিক্রি হচ্ছে দু থেকে আড়াইশ টাকা। স্থানীয় মৎস্যজীবীদের ধারনা বৈশাখ জৈষ্ঠ্য মাসে এ সমস্ত পোনা মাছ নিধন রোধ করা গেলে বর্ষাকালে হাওরে আর মাছের অভাব হত না।এইসব কারণে হাওরাঞ্চলে মাছের আকাল থাকে,এতে হাওরে জীব বৈচিত্র্য ও নষ্ট হচ্ছে। স্থানীয় সুশীল সমাজ প্রতিনিধিগন জানান,এখন হাওর অঞ্চলের বাজারগুলো বছরের বেশির ভাগ সময়ই থাকে পাঙ্গাস মাছের দখলে।তারপরও হাওরবাসী মৎস সম্পদ সংরক্ষণে কতটা আন্তরিক?সবার চোখের সামনেই পোনা নিধন উৎসব চললেও এ ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। অবিলম্বে হাওরে পোনা নিধন বন্ধ করতে হবে। এ ব্যাপারে সরকারের যেমন দায়িত্ব রয়েছে, দায়িত্ব রয়েছে সমাজের সর্বস্তরের মানুষের। উনারা জানান করোনা পরিস্থিতে একটি অর্থনৈতিক মহামন্দা হতে পারে এই আভাস সকল অর্থনীতিবিদই দিচ্ছেন। এই মহামন্দা থেকে মুক্তির জন্য অনেকেই কৃষি উৎপাদন বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন।তার পাশাপাশি একটু মনোযোগ দিলে হাওরে মাছের উৎপাদন একশো গুণ বাড়ানো সম্ভব। কথার কথা নয়,এটাই বাস্তবতা। যদি তিন মাস মাছ ধরা বন্ধ রেখে জেলেদের প্রণোদনা দেওয়া হয়। পাশাপাশি কঠোর মনিটরিং করা হয়। হু করে মাছের ফলন বাড়বে। এতে দেশের জিডিপি বৃদ্ধি হত। আমরা মন্দার প্রভাব থেকে বাঁচতে পারতাম। মাছ রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে পারতাম।সেজন্য দরকার একটু বাড়তি মনোযোগ। দরকার সুষ্ঠু তদারকি ও একটি জুতসই পরিকল্পনা। আমরা কি তা পারব না? এ ব্যাপারে তাহিরপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করলেও উনি ফোন রিসিভ না করায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো