English|Bangla আজ ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার রাত ১১:৪২
শিরোনাম
ভালুকায় আতংকে আছে নাজমার পরিবারকুড়িগ্রামে গাছের ডাল পড়ে প্রান গেল কাঠঁ ব্যবসায়ীরনাচনাপাড়ায় বাস্তবে একটি ইবতেদায়ী মাদ্রাসা থাকলেও একই নামে কাগজ-কলমে দেখানো হচ্ছে দুটি।পত্নীতলায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার শিশু খাদ্য বিতরণসাপাহারে ভুয়া কবিরাজের চিকিৎসায় হাত হারাতে বসেছে সাত বছরের শিশু!পলাশবাড়ীতে জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিতনাগেশ্বরী কামিল মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হলেন মোহাম্মদ অাব্দুল অাউয়ালকুড়িগ্রামে মোবাইলে অনলাইনে গেম খেলায় ১১ শিক্ষার্থী আটক- মুচলেকায় অভিভাবকের কাছে হস্তান্তরডিসিসিআই’র আয়োজনে ” সাস্টেইনএবল রিভার ড্রেজিং: চ‍্যালেঞ্জেস এন্ড ওয়ে ফরওয়ার্ড ” শীর্ষক অনলাইন আলোচনা সভায় নৌ প্রতিমন্ত্রীখানসামায় লকডাউন বাস্তবায়নে চলছে এসিল্যান্ড এর বাজার মনিটরিং ও ভ্রাম্যমাণ অভিযান

গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে ভোটারদের চাওয়া পরিকল্পিত উন্নয়ন ও সুষ্ঠু নির্বাচন

আল কাদরি কিবরিয়া সবুজ, (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

:-তৃতীয় ধাপে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন দোরগোড়ায়। পৌরবাসী খুঁজছেন তাদের পছন্দের মেয়র। ৩০ জানুয়ারি ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে মেয়র নির্বাচন করবেন গোবিন্দগঞ্জ পৌরবাসী। নির্বাচনকে সামনে রেখে চায়ের কাপে এখন প্রতিদিন চলছে ভোটের ঝড়। চলছে উন্নয়ন, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, চাওয়া-পাওয়া-না পাওয়ার জোর হিসাব-নিকাশ। পৌরবাসী অপেক্ষায় একজন যোগ্য মেয়রের। শহরজুড়ে চলছে জল্পনা কল্পনা। গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ভোটাররা কাকে ভোট দেবেন, সে সিদ্ধান্ত নেবেন ভেবেচিন্তে। তবে তাঁরা দলের প্রার্থীর চেয়ে ভালো মানুষ ও যোগ্য প্রার্থীকে মেয়র হিসেবে বেছে নেবেন। মঙ্গলবার ভোটারদের কাছে কেমন মেয়র প্রার্থী চান- জানতে চাইলে ভোটাররা এভাবে তাঁদের প্রত্যাশার কথা জানান। তবে অধিকাংশ ভোটারই অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপুর্ন নির্বাচনী পরিবেশ নিশ্চিতকরণের কথা জানিয়েছেন।

গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভায় মেয়র পদে তিন রাজনৈতিক দল ও দুই স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ পাঁচজন প্রতিদ্ব›িদ্ব থাকলেও ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখছেন ভোটাররা। তারা মনে করছেন এ পৌরসভায় মূল প্রতিদ্বদ্বিতা হবে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও স্বতন্ত্র (আ’লীগ ‘বিদ্রোহী’) প্রার্থীর মধ্যে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, স্বতন্ত্র (আ’লীগ ‘বিদ্রোহী’) প্রার্থীসহ ৫ জন মেয়র, ১২ সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর এবং ৩৭ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী ভোটযুদ্ধে রয়েছেন।

এ পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগ থেকে একেএম জাহাঙ্গীর আলম (নৌকা), বিএনপি থেকে ফারুক আহমেদ (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আনিছুর রহমান (হাতপাখা) এবং স্বতন্ত্র মুকিতুর রহমান রাফি (নারিকেল গাছ) ও মোছা. জহুরা খাতুন (মোবাইল ফোন) প্রতীকে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন। পৌর নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে অংশ নেয়ায় আওয়ামী লীগ থেকে মুকিতুর রহমান রাফিকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ১৫টি ভোটকেন্দ্রে ২৯ হাজার ৯শ’ ৭৯ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এরমধ্যে পুরুষ ১৪ হাজার ৬শ’ ৭৪ জন ও নারী ১৫ হাজার ৩শ’ ০৫ জন।

ভোটারদের একটি অংশ বলছেন, আগামী দিনে গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়নে পরিকল্পিত প্রয়োজনীয় পরিবেশ ও নাগরিক সুবিধাসম্পন্ন পৌরসভা গড়ে তোলা খুবই প্রয়োজন। এছাড়া পৌর এলাকায় রাস্তাঘাট নির্মাণ, জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রয়োজনীয় ড্রেন নির্মাণ, যানজট সমস্যা নিরসনে বাস-ট্রাকসহ পৃথক যানবাহন স্ট্যান্ড, আলোকিত পৌরসভা গড়তে পর্যাপ্ত সড়ক বাতি স্থাপন, জননিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করা, পরিকল্পিত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত, শিশু-কিশোর এবং বৃদ্ধদের জন্য পার্ক ও বিনোদন কেন্দ্র, সন্ত্রাস ও মাদক নিরসনে কাজ করাসহ জবাবদিহিতা নিশ্চিতে সুনির্দিষ্ট অঙ্গীকার ও বাস্তবায়ন চান তারা। সেজন্য আলাদা দক্ষতা থাকতে হয়। তারা বলেন, নির্বাচনে মেয়র পদে একজন ভালো মানুষকে ভোট দিতে চান। তাঁরা যোগ্যতার ভিত্তিতে বেছে নেবেন পৌরসভার মেয়র। এজন্য ভোটাররা এবার গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে চিন্তাভাবনা করে মেয়র নির্বাচিত করবেন।

ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের একেএম জাহাঙ্গীর আলম, আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ স্বতন্ত্র প্রার্থী মুকিতুর রহমান রাফি ও বিএনপির ফারুক আহমেদের মধ্যে প্রতিদ্বদ্বিতা হবে হাড্ডাহাড্ডি। একদিকে যেমন নৌকার মনোনীত প্রার্থী একেএম জাহাঙ্গীর আলম দলীয় প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছেন। অন্যদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি পদ থেকে সদ্য অব্যাহতিপ্রাপ্ত মুকিতুর রহমান রাফি নারিকেল গাছ নিয়ে বিজয়ী হওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন। অপরদিকে বিএনপির ফারুক আহমেদও নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধানের শীষের প্রচার-প্রচারণা ও ভোট প্রার্থনা করে গোটা পৌর এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন। ইতোমধ্যেই পৌর শহরের বিভিন্ন সড়ক, স্থাপনা, অফিস-আদালত পোস্টারে-পোস্টারে ছেয়ে গেছে। সমান তালে চলছে মাইকিং। প্রতিদ্বদ্বি প্রার্থীরাও তীব্র শীত আর ঘন কুয়াশা উপেক্ষা করে দিনরাত ছুটে চলেছেন ভোটারদের বাড়ি বাড়ি। দিচ্ছেন নানা ধরণের উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি। সকলেই সন্ত্রাস, মাদকমুক্ত মডেল পৌরসভা গঠনের কথা বলছেন এবং নিজ নিজ অবস্থানে থেকে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। তবে নাগরিকদের নিরাপদ ও উন্নত জীবন নিশ্চিত করতে পারবেন-গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভায় এমন নেতৃত্ব দেখতে চান নতুন ভোটাররা। জীবনে প্রথমবারের ভোট সুষ্ঠু পরিবেশে অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে এমনটাই প্রত্যাশা তাদের।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো