English|Bangla আজ ৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার রাত ১২:১৫
শিরোনাম
গাজীপুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ ২০২১ উপলক্ষে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।গাজীপুরের মনিপুর এলাকায় স্ত্রীর ৭ টুকরো লাশ উদ্ধার; স্বামী গ্রেপ্তারঠাকুরগাঁওয়ে দাদন ব্যবসায়ীর ফাঁদে পড়ে সর্বশান্ত চিকিৎসকচিরিরবন্দরে সেচ্ছাসেবী সংগঠন “পাশে দাঁড়াও” এর প্রথম বর্ষপূর্তি ও মিলন মেলা উদযাপননাগেশ্বরীতে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষে অানন্দ উদযাপনরাণীনগর থানা পুলিশের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ দিবস উদযাপনকুড়িগ্রামে সরকারি অনুদানের গুজব: আবেদন করতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভিড়নওগাঁয় নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে উদযাপন করা হলো ঐতিহাসিক ৭মার্চের ভাষন দিবসরাণীনগরে নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে উদযাপন করা হলো ঐতিহাসিক ৭মার্চের ভাষন দিবসউলিপুরে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ প্রথম জাতীয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা,পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠিত

সুন্দরগঞ্জে কৃষক ছাউনির উদ্বোধন করলেন এমপি শামীম হায়দার পাটোয়ারী

এনামুল হক,সুন্দরগঞ্জ(গাইবান্ধা)প্রতিনিধিঃ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে কৃষকদের সুবিধার্থে কৃষক ছাউনির উদ্বোধন করা হয়েছে।

গতকাল রবিবার বিকেলে উপজেলা কৃষি অফিসারের উদ্যোগে সোনারায় গ্রামে কৃষকের ছাউনির উদ্বোধন করেন স্থানীয় সাংসদ ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহিল জামান,উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাহমুদ হোসেন মন্ডল, ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ বদিরুল আহসান সেলিম,জাপা নেতা আনছার আলী সরদার, স্থানীয় কৃষক ও সুধিজন।

প্রতি বছর দেশে বজ্রপাতে অনেক মানুষ মারা যায়। তার সিংহ ভাগই কৃষক। কারণ মাঠে কাজ করার সময় হঠাৎ ঝড় বৃষ্টিতে বজ্রপাত ঘটলে আশে পাশে কোন আশ্রয়স্থল না থাকায় কৃষকরা সহজেই বজ্রপাতে আক্রান্ত হয়ে জীবন হারান।এছাড়া তীব্র গরমে একটু বসে কৃষকের শরীর ঠান্ডা করার মত কোন আশ্রয় মাঠে থাকে না।

এই বিষয়টি মাথায় নিয়ে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা কৃষি বিভাগের উদ্দ্যোগে প্রথম”কৃষকের ছাউনি” স্থাপনের উদ্দ্যোগ নেয়া হয়। এ উদ্যোগকে বাস্তবায়ন করতে স্থানীয় সাংসদ ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারীর সহযোগিতায় স্থাপন করা হয় তিনটি কৃষকের ছাউনি।

পরবর্তিতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় পর্যায়ক্রমে ৫০ টি কৃষকের ছাউনি স্থাপন করা হবে। এই ছাউনিগুলো তৈরি করা হচ্ছে গ্রামীণ পরিবেশ বান্ধবরুপে। একই সাথে আবহমান বাংলার ঐতিহ্য ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এই ছাউনিগুলোতে।

উপজেলা কৃষি বিভাগের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের আন্তরিক সহযোগিতায় এই অসাধ্য সাধন করা সম্ভব হয়েছে । এসব “কৃষকের ছাউনি ” কৃষকদের জন্য মুজিব বর্ষের উপহার বলে জানান কৃষি অফিসার কৃৃৃষিবিদ সৈয়দ রেজা-ই-মাহমুদ।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো