English|Bangla আজ ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার রাত ১০:২৩
শিরোনাম
অনলাইন পাবলিক গ্রুপ আমাদের জন্মভূমি- কিশোরগঞ্জ এর দ্বিতীয় ধাপে শীতবস্ত্র বিতরণভালুকা পৌর নির্বাচন: প্রচারণায় ব্যস্ত মমেক ছাত্রলীগ সম্পাদক হাসাননারী ফুটবল লীগে নিজ পরিচয়ে খেলতে চায় রংপুরের পালিচড়ার মেয়েরানবীনগরে বিদ্যুতের অাগুণে পুড়ে চাচা ভাতিজার মৃত্যুবুড়িচংয়ের আনন্দপুরে মানবতার দেয়াল উদ্ভোধন ও শীতবস্ত্র বিতরণবর্ণাঢ্য অায়োজনে কালীগঞ্জে এশিয়ান টিভি’র ৮ম বর্ষপূর্তি উৎযাপন।মহেশপুরে মাদক, বাল্যবিবাহ এবং আত্নহত্যা প্রতিরোধে ওয়ার্কশপ অনুষ্টিত।ঈদগাঁও থানা শুভ উদ্বোধন করেন-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীমোহনপুর ইউপির জনসাধারণের সাথে আঃলীগ নেতা জনির সৌজন্যে সাক্ষাতসাপাহার রক্তদাতা সংগঠনের শীতবস্ত্র বিতরণ

ময়মনসিংহ শহরে চরম ভাবে চুরি ছিনতাই চাঁদাবাজি বেড়েছে

স্টাফ রিপোর্টার, ময়মনসিংহ :

অপরাধ প্রবনতা রেড়েই চলেছে ময়মনসিংহ শহরে ও শহরতলী এলাকায়। পাট গুদাম ব্রীজ মোড়, পাট গুদাম আবাসন বস্তি, রেলওয়ের পরিত্যক্ত আবাসিক ভবন, মাসকান্দা বাইপাস মোড়, রহমত পুর বাইপাস মোড়, মালগুদাম এলাকায় মাদক সেবন, চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটে চলেছে।

গ্রীল ভেংগে বাসা রাড়িতে চুরি, মোটর সাইকেল চুরি হচ্ছে অহরহ। অথচ ময়মনসিংহ শহরের কোতোয়ালী মডেল থানায় যারা কর্মরত আছেন তারা প্রায় সবাই দীর্ঘদিন ধরে কর্মরত রয়েছেন। গত সপ্তাহে পুলিশ সুপারের “মিট দ্যা প্রেস” অনুষ্ঠানে সাংবাদিকরা আইনশৃংখলার বিষয়ে এমন অভিযোগ ধরে তুলেন। এ সময় পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামান (পিপিএম-সেবা), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার( পুলিশ সুপার পদোন্নতি প্রাপ্ত) হুমায়ুন কবির, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়ীতা শিল্পী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল-আমীন, কোতোয়ালী থানার আফিসার ইনচার্জ মাহামুদুল ইসলাম (পিপিএম) ও জেলা গোয়েন্দা সংস্থার অফিসার ইনচার্জ শাহ মোঃ কামাল আকন্দ প্রমূখ।

ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে জেলা পুলিশ সুপারের এক মাস অতিবাহিত করার সফলতায় “মিড দ্যা প্রেস” অনুষ্টানে সাংবাদিকরা অনেক অভিযোগ উত্থাপন করেন। এ শহরে চিহ্নীত সন্ত্রাশীদের চাঁদাবাজী, মাদক স¤্রাটদের মাদক ব্যবসা, অটো রিক্সায় ছিনতাই, বিভিন্ন হোস্টেল মেসে নীরব চাঁদাবাজী, বিভিন্ন মোড়ে ও শহরের চিহ্নীত কিছু স্থানে হরহামেশাই ছিনতায়ের কথা উঠে আসে পুলিশের আয়োজন করা “মিট দ্যা প্রেস” অনুষ্ঠানে। শহরে অহরহ মোটর সাইকেল চুরির কথা ধরে তুলেন এক সাংবাদ কর্মী। তার মোটর সাইকেল চুরি হওয়ার পর পুলিশ কোন কুলকিনারাই করতে পারেনি।

তার অভিযোগ থানা পুলিশের কোন প্রকার সহযোগিতা না পেয়ে সে ডিবি পুলিশের আশ্রয় নেন। পরে ত্রিশালে তার আতœীয়রা মোটর সাইকেল চিনতে পেরে আটক করে। ডিবি পুলিশ তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেন। ত্রিশাল পুলিশের আওতায় মোটর সাইকেল নেয়ার পর, সাংবাদিকের কাছে মোটর সাইকেল দেয়া হয়। মোটর সাইকেল চুরির মামলা থানায় নেয়া হয়না বলে অনেকে জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে মোটর সাইকেল হারিয়ে যাওয়ার জিডি করতে বাধ্য হয় মালিকরা। এ শহরের অধিকাংশ বাসা বাড়িতে গ্রীল ভেঙ্গে চুরি হওয়ার ঘটনায়, পুলিশ মামলা নেয়ার নজীর খুবই কম। অথচ গ্রীল ভেঙ্গে বাসাবাড়ি অহরহ চুরির ঘটনা ঘটে চলেছে। এ সকল ঘটনায় পুলিশ ভুক্তভোগীদের বলেন, অভিযোগ দিয়ে যান তদন্ত করে দেখি! তারপর পুলিশের ২/৩ বার যাওয়া আসা! এক সময় অভিযোগপত্র চলে যায় ড্রিপফ্রিজে। গত দু’বছর ধরে এভাবেই চলছে।

সাপ্তাহিক আলমিনার পত্রিকার সম্পাদক হাফিজুর রহমান হেলাল সাহেবের বাসায় এমন ভাবে চুরি হয়েছিল। এটাও চলে গেছে ফাইলবন্দিতে। এমন নাগরিক সেবা দিয়েও তারা তদবিরের জোরে কিংবা ফুয়েলের ব্যবহারে দাপটের সাথেই থাকে চেয়ার আকঁড়ে!
মাদকের স¤্রাটরা এখনো ধরাছোঁয়া বাইরে। যাদের নামে আছে ডজন ডজন মামলা। এসকল মাদক স¤্রাটরা এতোটাই ফাস্ট যে ডিবি কিংবা র‌্যাবের অভিযানে খবর আগে পৌঁছে যায়! বেশ কিছু মাদক ব্যবসায়ী জেলা গোয়েন্দা সংস্থার হাতে ধরা পড়েছে। এতেও নাকি কতিপয় পুলিম নাখোশ! তবে মাদক স¤্রাটরা এখন আতœগোপন করে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো