English|Bangla আজ ৯ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার সকাল ১০:১৯
শিরোনাম
GUBK Award 2021 পেলেন নারী সাংবাদিক দৈনিক পূর্বকণ্ঠ’র নিজস্ব প্রতিবেদক শাহীন সুলতানাসাতক্ষীরায় ৭ মার্চ উপলক্ষে আবৃত্তিতে শিশু শিল্পী হিসেবে প্রথম হয়েছেন সাংবাদিক কন্যা দিঘী ।নবীনগরে নারী দিবসে ১০ লক্ষ টাকা ঋণ বিতরনকরোনাকালে নারী নেতৃত্ব গড়বে নতুন সমতার বিশ্ব”এই শ্লোগানে নরসিংদীতে নারী দিবস পালিতকাপাসিয়া ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের কমিটি গঠনপত্নীতলায় আর্ন্তজাতিক নারী দিবস উদযাপনতানোরে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপনগরীব ও হত দরিদ্রের মাঝে ২লক্ষ ৪০ হাজার টাকা বিতরণ করলেন এমপি তুহিনগাজীপুরে MAN’S WORLD MART,কাপড়ের শোরুম শুভ উদ্বোধন।র‍্যাব-১, দক্ষিণ সালনা এলাকা হতে ১৩০পিছ ইয়াবাসহ এক নারী মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেন।

মাদারীপুরে অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়তে গিয়ে প্রধান শিক্ষক বদলি

রাকিব হাসান, মাদারীপুর

মাদারীপুরে প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় সাধারন মানুষের চোখে আঙুল দিয়ে, দেখিয়ে অনিয়মইকে নিয়ম বানিয়ে দূর্নীতি চালিয়ে যাচ্ছে একটি মহল। সরকারী নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কতৃক জাল স্বাক্ষর করে ম্যানেজিং কমিটি গঠন করার উঠেছে।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির মাধ্যমে সরকারী সম্পদ আত্মসাদসহ নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে লড়তে গিয়ে নিজেই হেরে গেলেন ১১১নং চরমুগরিয়া-২ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকা ফারহানা আক্তার শাম্মী।

প্রভাবশালী একটি রাজনৈতিক মহল, জেলা ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের যোগসাজেসে তাকে স্টান্ড রিলিজ করা হয় অভিযোগ উঠেছে। এতে জনমনে দেখাদিয়েছে নানা প্রশ্ন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সম্প্রতি মাদারীপুর পৌরসভাধীন ১১১নং চরমুগরিয়া-২সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আইয়ুব খান ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অলকা রায় কৌশলে বিদ্যালয়ের মালামালসহ অর্থ আত্মসাত করেন। যা বিদ্যালয়ের মাসিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে প্রকাশ পায়। বিষয়টি প্রধান শিক্ষক ফারহানা আক্তার শাম্মী প্রতিবাদ করে তার উর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে জানান। যা বিভিন্ন গণমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়।

অনুসন্ধানে আরও জানা যায়, অলকা রায় উপজেলা ও সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের স্বাক্ষর জাল করে, কমিটির মেয়াদ থাকার পরেও একটি ভুয়া ম্যানেজিং কমিটি গঠন করে। এমন দুর্নীতি করে কমিটি গঠন ও বিদ্যালয়ের মালামালসহ অর্থ আত্মসাতকারী এসএসসি পাস ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অলকা রায়ের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে বরং বিএডসহ মাস্টার্স ডিগ্রীধারী ওই বিদ্যালয়ের অর্থ ও মালামাল আত্মসাতের ঘটনা উদঘাটনকারী প্রধান শিক্ষককে ফারহানা আক্তার শাম্মীকে স্ট্যান্ড রিলিজ করে প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।

এতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলার শক্তির কন্ঠরোধ করা হয়েছে। যা মাদারীপুরের সচেতন মহলে আলোড়ন সৃষ্টি করে। এতে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে, অপরাধ করেও পার পেয়ে যায় দোষী শিক্ষক আর দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলায় নিরাপরাধ প্রধান শিক্ষক পেলো সাজা।

নাম প্রকাশে একাধিক অভিভাবক জানান, আয়ুব খান পৌরসভার ৯নং ওয়াডের একজন কাউঞ্চিলর ও মাদারীপুরের এক প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতার ছত্রছায়ায় থেকে অপকর্ম করে যাচ্ছে। তাই আমরা তার ভয়ে কিছু বলার সাহস পাইনা। তিনি কম শিক্ষিত তাই মাস্টার্স ডিগ্রীধারী শিক্ষককে বদলী করে এসএসসি পাস শিক্ষককে প্রধান শিক্ষকের দ্বায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এর থেকে পরিত্রান চাই। আমরা সবাই সরকারের উর্ধতন কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে আরো জানা যায়, সরকারী প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি পদের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক পাস হতে হবে। অথচ ১১১নং চরমুগুরিয়া-২ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আউয়ুব খান স্নাতক ডিগ্রীধারী না হলেও তাকে সভাপতি করা হয়েছে। তাও পিছনের তারিখ দিয়ে সরকারের প্রজ্ঞাপন জারির এক মাস আগে। সেই ম্যানেজিং কমিটি গঠন ও তা অনুমোদন দিয়েছেন সদর উপজেলা ও উপজেলা এবং সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা। অথচ বর্তমানে শিক্ষা কর্মকর্তারাও নতুন করে ম্যানেজিং কমিটি করার জন্যে নির্বাচনী তফসীল ঘোষণা দেয়।

তবে সদর উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা মোকলেছুর রহমান বলেন, ‘নতুন কমিটির কাগজে তিনিসহ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রাশিদা বেগম কেউ স্বাক্ষর করেনি। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অলকা রায় আমাদের সই জাল করে কমিটি দেখিয়েছে। এ জন্য ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অলকা রায়কে কৈফিয়ত তলব করা হবে।’

মাদারীপুরে টিআইবি’র প্রেরণায় গঠিত স্বচ্ছতার জন্যে নাগরিক (স্বজন) কমিটির সহ-সমন্বয়ক সাগর তামিম বলেন, ‘অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলায় প্রধান শিক্ষক ফারহানাকে পুরস্কৃত না করে বরং তাকে বদলী করা খুবই অমানবিক হয়েছে। এতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কন্ঠরোধ করার সামিল। বিষয়টি তদন্ত করে দোষীদের শাস্তি দাবী করছি।’

এব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অলকা রায় ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আইয়ুব খান সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে রাজি হয়নি। তবে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘ফাহানা আক্তার শাম্মীকে বদলী উধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে হয়েছে। এখানে আমাদের কিছুই করার নেই।’

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো