English|Bangla আজ ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার দুপুর ২:০৫
শিরোনাম
র‍্যাব-১, গাজীপুরের টঙ্গী বাজার এলাকা হতে ৩৪৫ বোতল চোলাইমদসহ ১জন গ্রেফতার।নওগাঁয় মুজিব শতবর্ষে শতবলের ক্রিকেট টুর্নামেন্টের চ’ড়ান্ত খেলায় জেলা প্রশাসন একাদশ ১০১ রানে বিজয়ীকুড়িগ্রামে ৪০দিনের কর্মসূচীর টাকা ফেরত; আইনানুগ ব্যবস্থার দাবী বঞ্চিতদেরগাইবান্ধা প্রেসক্লাবের বার্ষিক প্রীতি সম্মিলন অনুষ্ঠিতকুড়িগ্রাম সদরে হা-ডু-ডু ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিতমুক্তাগাছায় ইউনিয়ন পরিষদ, নির্বাচন উপলক্ষে উঠান বৈঠক ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।মানব সেবার উপরে কোন ইবাদত নেই- আলহাজ্ব ইদ্রিস মিয়ারাণীনগরে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ডিজিটাল ম্যারাথন অনুষ্ঠিতপাথরঘাটায় মেয়েকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় বখাটের ছুরির আঘাতে রক্তাক্ত মা,বখাটে আটক।কুড়িগ্রামে কবরস্হান বৃদ্ধির উপলক্ষে ৩য় বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল: প্রধান অতিথি যুক্তিবাদী

বেনাপোল কাষ্টমস হাউসের লকার থেকে ১৯ কেজি স্বর্ণ চুরি হওয়ার ঘটনায় সাড়ে ৩ মাস পার হলেও স্বর্ণ উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ

বেনাপোল প্রতিনিধি

বেনাপোল কাস্টমসের লকার খুলে ১৯ কেজি ৩ শত ৮০ গ্রাম স্বর্ণ ঘটনার কাস্টমসের চুক্তি ভিক্তিক কর্মচারী বেনাপোল গাজিপুর গ্রামের আজিবর রহসান আটক হলেও দুই মাসে চুরি হওয়া সম্পদ উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। স্থানীয়দের দাবী কাস্টমের অবহেলার কারণে সরকারের এ সম্পদ চুরির ঘটনা ঘটেছে। নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে সরকারের এত বড় সম্পদ যারা অবহেলায় রেখেছিলেন তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। বর্তমানে স্বর্ণ চুরির বিষয়টি সিআইডি তদন্ত করছে।

বেনাপোল সীমান্তের বিভিন্ন এলাকা থেকে চোরাকারবারিদের কাছ থেকে জব্দ করা স্বর্ণসহ মূল্যবান সম্পদ জমা রাখা হয় কাস্টমস হাউজের লকারে। গত ২০১৯ সালের ৮ নভেম্বর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত ছুটির সময়ে লকার ভেঙে চুরি হয়ে যায় স্বর্ণ, রুপি ও টাকা। লকারে থাকা আরো স্বর্ণ, বৈদেশিক মুদ্রা ও অন্যান্য সম্পদ অক্ষত অবস্থায় ছিল। আবার কক্ষটির পাহারার দায়িত্বেও কেউ ছিলেন না। সিসি ক্যামেরার নিরাপত্তার মধ্যে চুরির ঘটনা ঘটলেও চুরি হওয়া সম্পদ উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বন্দরের ব্যবসায়ীরা কাস্টমস কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা বলছেন, অপরাধী শনাক্ত করতে ব্যর্থ হলে আগামীতে এমন ঘটনা আবারও ঘটতে পারে।

কাস্টমস কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরী বলেন স্বর্ণ চুরির ঘটনার পর পর কাস্টমসের ৫ জনকে চাকুরীচ্যুত করা হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তির এ যুগে চুরি হওয়া স্বর্ণ উদ্ধার না হওয়ায় বিস্মিত হয়েছি। অপরাধিদের দ্রত ধরা দরকার। যেন আর কেউ ভবিষ্যতে সরকারের সম্পদ চুরি করতে সাহস না পায়।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মামুন খান বলেন ২০১৯ সালের ৯ নভেম্বর বেনাপোল কাস্টমসের লকার থেকে ১৯ কেজি ৩ শত ৮০ গ্রাম স্বর্ণ খোয়া যায়। এ ঘটনায় বেনাপোল পোর্ট থানায় মামলা হয়। মামলাটি বর্তমানে সিআইডি তদন্ত করছে।

তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি ইন্সপেক্টর জাকির হোসাইন বক্তব্য দিতে রাজি হয়নি। তবে তিনি জানান ঘটনার সাথে জড়িত কাস্টমসের চুক্তি ভিক্তিক কর্মচারী বেনাপোল গাজিপুর গ্রামের আজিবর রহমানকে আটক হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্ব পূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে তদন্তের স্বার্থে প্রকাশ করা যাচ্ছে না। এলাকাবাসী ও ব্যবসায়ীরা চুরি হওয়া স্বর্ণ উদ্ধারসহ অপরাধী শনাক্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো