English|Bangla আজ ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার রাত ১০:০৯
শিরোনাম
ভালুকা পৌর নির্বাচন: প্রচারণায় ব্যস্ত মমেক ছাত্রলীগ সম্পাদক হাসাননারী ফুটবল লীগে নিজ পরিচয়ে খেলতে চায় রংপুরের পালিচড়ার মেয়েরানবীনগরে বিদ্যুতের অাগুণে পুড়ে চাচা ভাতিজার মৃত্যুবুড়িচংয়ের আনন্দপুরে মানবতার দেয়াল উদ্ভোধন ও শীতবস্ত্র বিতরণবর্ণাঢ্য অায়োজনে কালীগঞ্জে এশিয়ান টিভি’র ৮ম বর্ষপূর্তি উৎযাপন।মহেশপুরে মাদক, বাল্যবিবাহ এবং আত্নহত্যা প্রতিরোধে ওয়ার্কশপ অনুষ্টিত।ঈদগাঁও থানা শুভ উদ্বোধন করেন-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীমোহনপুর ইউপির জনসাধারণের সাথে আঃলীগ নেতা জনির সৌজন্যে সাক্ষাতসাপাহার রক্তদাতা সংগঠনের শীতবস্ত্র বিতরণময়মনসিংহ রেঞ্জে বিট পুলিশিং সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর উদ্বোধন এবং অপরাধ সভা অনুষ্ঠিত

বিদায়ী বছরে কুড়িগ্রাম জেলা পুলিশের প্রশংসনীয় সাফল্য

রতি কান্ত রায়, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:

২০১৯ সালের প্রশংসনীয় সাফল্য কুড়িগ্রাম জেলা পুলিশের। ২০১৯ ইং সালের ২৩ জুন পুলিশ সুপার পদে মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান (বিপিএম) এর যোগদানের পর থেকে জেলার মাদক, চোরাকারবারীসহ সকল অপরাধীদের আতংকে পরিনত হয়েছে। ইতিমধ্যে নাগেশ্বরী ও ফুলবাড়ীর প্রায় দেড় শতাধিক মাদক ব্যবসায়ী তার কাছে আত্মসমর্পন করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

সম্প্রতি পুলিশ কনস্টবল নিয়োগ স্বচ্ছতার সাথে সম্পন্ন করা, শীতে অসহায় দারিদ্র, প্রতিবন্ধী ও দলিত সম্প্রাদায়ের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ এবং চিলমারীর শিশু সুরভীর শিকল মুক্তি ও চিকিৎসার দায়িত্ব নেওয়া, বন্যায় ত্রান বিতরন,লবনগুজব মোকাবেলা, মহান বিজয় দিবসে পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনাসহ নানা কাজে জনমনে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছেন পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম।

২০১৯ সালের জেলা পুলিশের সাফল্য গুলো:
মাদক উদ্ধার: জেলা পুলিশ কুড়িগ্রাম বিভিন্ন সময় অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে ২০১৯ সালে ৭১৩ কেজি গাঁজা, ৪৪৪৫১ পিস ইয়াবা, ৪২৩.৯০ গ্রাম হেরোইন, ১৮০১ বোতল ফেন্সিডিল, ১২৬ বোতল বিদেশী মদ, ২১১ লিটার দেশী মদ এবং গাঁজার গাছ ৭টি উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে অত্র জেলায় নিয়মিত কমিউনিটি পুলিশিং ও ওপেন হাউজ ডে সভার আয়োজন করা হয়।আয়োজিত সভায় সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিসহ সকলকে নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধি করার কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়াও প্রতিটি এলাকায় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের নিয়ে একটি করে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মামলা নিষ্পত্তির হার: অত্র জেলায় রুজুকৃত মামলা নিষ্পত্তির জন্য মামলা মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে। পুরাতন ও জটিল মামলাগুলি মনিটরিং সেল এর মাধ্যমে পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করায় অতি দ্রুত মামলা নিষ্পত্তি সম্ভব হচ্ছে।

ট্রাফিক ব্যাবস্থাপনা ও জরিমানা আদায়: ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করার অপরাধে কুড়িগ্রাম জেলায় মোট ৭৬৫২টি মামলা এবং ২৭,৪১,৯০০ (সাতাশ লক্ষ একচলি­শ হাজার নয়শত) টাকা জরিমানা আদায়পূর্বক সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করা হয়েছে।

নিখোঁজ নারী, শিশু ও নিখোঁজ ব্যক্তি উদ্ধার: জেলায় ২০১৯ সালে নারী ও শিশু অপহরণের ঘটনায় মোট ৪৪টি মামলা রুজু হয়। সংশ্লিষ্ট মামলাগুলির তদন্তকারী কর্মকর্তা অপহরণকৃত সকলকেই উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছেন।

ক্লু-লেস, চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলা ডিটেকশন: ক্লু-লেস,চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলা যেমন, নাগেশ্বরী থানার মামলা নং-১৬ তাং ১০.০৯.২০১৯ইং, ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার এবং মামলার রহস্য উদঘাটন হয়েছে। মামলা নং ৩৭ তাং ২৭.০৯.২০১৯ইং ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর ঘটনাটিও একটি ক্লুলেস ঘটনা। প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের গ্রেফতার করত; মামলার মূল রহস্য উদঘাটন সম্ভব হয়েছে।রৌমারী থানার মামলা নং-১২,তাং ১৯.১০.২০১৯ইং, ধারা- ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর ভিকটিম একজন স্কুল ছাত্রী।গত ১৯.১০.২০১৯ইং বিকেল ৩ঘটিকার পর চর ঘুঘুমারী গ্রামের কাশিয়াবাড়ীর ভিতর ভিকটিম এর ওড়নার একপ্রান্ত দিয়ে গলা পেচানো এবং অপর প্রান্ত দিয়ে মুখ পেচানো এবং এবং স্কুল ড্রেসের বেল্ট দিয়ে পিছনে দু’হাত বাধা মৃত অবস্থায় পাওয়ায় বর্ণিত সংবাদ রৌমারী থানায় আসার পর পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

রৌমারী থানায় মামলা নং-১২, তাং ১৯.১০.২০১৯ইং ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড রুজু হয়।মামলা হওয়ার পর কোন তথ্য,উপাত্ত পাওয়া না গেলেও প্রযুক্তিগত তথ্যের সহায়তায় ঘটনার সাথে জড়িত আসামী নুরনবী (২১),পিতা- মৃত জোনাব আলী এবং হামিদুল ইসলাম (২০), পিতা- হাসেন আলী, উভয় সাং চর ঘুঘুমারী,থানা উলিপুর। তাদের দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়। আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে এবং বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে। উলিপুর থানার মামলা নং-২৮, তাং ২২.১০.২০১৯ইং, ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড এর ঘটনাটিও একটি ক্লুলেস ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন এবং আসামীরা গ্রেফতার হয়েছে।

অপরাধ সংস্পর্শে আসা পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা: বিভিন্ন অপরাধের সংস্পর্শে আসা পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।এর মধ্যে এক এসআই (নিরস্ত্র) ও এক এএসআই (নিরস্ত্র) এবং একজন কনস্টবলের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের অভিযোগে ফৌজদারী মামলা রুজু হয়। তাদেরকে বিভাগীয় শাস্তি প্রদানের নিমিত্তে বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়েছে। এছাড়াও ২জন কনস্টেবল ফৌজদারী মামলায় আটক হলে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করে বিভাগীয় মামলা রুজু করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম জানান, কুড়িগ্রাম জেলাকে মাদক মুক্ত করতে জেলা পুলিশ সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।জনগণ যেন হয়রানির স্বীকার না হয়, সে ব্যাপারে জেলার প্রত্যেকটি থানায় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। মুজিববর্ষ ২০২০ কে সামনে রেখে জেলা পুলিশ কুড়িগ্রামকে আরো বেশী জনমুখী করা হবে, থানায় সেবার মান বৃদ্ধি, পুলিশ চেকপোষ্ট ও বক্স স্থাপন, নারী শিশু ডেস্ক, মুক্তিযোদ্ধা ডেস্ক স্থাপনসহ মাদক ও জুয়ার বিরুদ্ধে অভিযান জোড়দার করা হবে।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো