English|Bangla আজ ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার রাত ২:৫৬
শিরোনাম
কুড়িগ্রামে সেকেন্দার বীজ হিমাগারে নতুন আলু সংরক্ষনে দোয়া ও মিলাদগাইবান্ধায় জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিতখানসামায় সরক দুর্ঘটনায় মটর সাইকেল আরোহীর মর্মান্তিক মৃত্যু।ঠাকুরগাঁও নাগরিক কমিটির সাধারণ সভা অনুষ্ঠিতকুড়িগ্রামে রাস্তা সংস্কার কাজের উদ্বোধন করলেন সংসদ সদস্য আলহাজ্ব পনিরউলিপুরে ট্রাক চাপায় শিশুর মৃত্যুবঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে লাউডোব ইউনিয়ন আ’লীগের আলোচনা সভা:নবীনগরে মুজাক্কির হত্যার বিচার চেয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন নবীনগর থানা প্রেসক্লাব।নওগাঁয় সকালে তালিকা থেকে বাদ ॥ দুপুরে মৃত্যু ॥ বিকেলে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন ॥ এলাকায় আলোচনার ঝড়পলাশবাড়ীতে প্রমীলা প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

পানি সংকট বৃহত্তর চলনবিলে

রাজিবুল করিম রোমিও, ভাংগুড়া (পাবনা), প্রতিনিধি

বর্ষা মৌসুম শেষে চলনবিলের আত্রাই, নন্দকুঁজা, গুমানীসহ ১৫টি নদ-নদীর পানি শুকিয়ে নৌ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।
আবার দখল, দুষন আর ভরাটের কারনে সংকুচিত হয়ে পড়ায় মরে যাচ্ছে চলনবিলের নদীগুলো।

বর্ষা মৌসুমে পানি থাকলেও নদীর গভীরতা কম থাকায় পৌষ মাসের দিকে নদ-নদী শুকিয়ে যায়।পানির অভাবে কৃষি জমির সেচকাজ ব্যাহত হবার পাশাপাশি দেশী মৎস্য সম্পদ ও জীব-বৈচিত্র হুমকির মুখে পড়েছে। নদীকে জীবিকা করে খাওয়া মানুষগুলো বেকার হয়ে পড়েছে। এর প্রভাব পড়েছে ব্যবসা বাণিজ্যেও।

স্থবির হয়ে গেছে হাটবাজারগুলো। তবে উপজেলার সাবগাড়ী এলাকায় একটি রাবারড্যাম স্থাপনের কারনে নদীর উজানে কয়েক কিলোমিটার জুড়ে এখনও পানি রয়েছে।
আর পনেরদিন পর রাবারড্যাম নামিয়ে দিলে সে পানিও থাকবেনা।

এক সময় নদীকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা বাণিজ্য কেন্দ্র গুরুদাসপুর উপজেলার চাঁচকৈড় হাটসহ বিভিন্ন হাটবাজারে নদী পথের সঙ্গেও সহজলভ্য অপেক্ষাকৃত কম ঝুকিপূর্ণ নৌযোগাযোগে ব্যবসা বাণিজ্য চলেছে। নানা কারনে অস্তিত্ব সংকটে থাকা নন্দকুজা ও আত্রাই নদী সৌন্দর্য্য, পূর্ব জৌলুশ ও স্বকীয়তা হারিয়ে খালে পরিনত হয়েছে। জল পথে পণ্য পরিবহনে খরচ কম হলেও বর্তমান সময়ে এলাকার সব জলপথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অধিক খরচে ব্যবসায়ীদের স্থল পথে পণ্য পরিবহন করতে হচ্ছে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞানী ড.মোঃ রেদওয়ানুর রহমানের প্রবন্ধ থেকে পাওয়া তথ্য জানা গেছে, প্রায় ২৯ বছর আগেও চলনবিলের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত নদ-নদীতে বছর জুড়েই ৬-১২ ফুট পানি থাকত। ফলে বছর জুড়েই নৌচলাচল করতো। কিন্তু বছরের পর বছর পলি জমে এসব নদী ভরাট হয়ে গেছে। গত বছর আত্রাই নদী খননের মাটি নদীর পাড়ে রাখার কারণে অধিকাংশ নদীর তলদেশ পলি জমে ভরাট হয়ে গেছে।

অথচ এক সময় এসব নদীতে বছর জুড়েই পানি থাকতো। নদীতে চলাচল করতো ছোট বড় নৌকা।নদী আর নৌকাকে ঘিরে চলনবিলের গুরুদাসপুরের চাঁচকৈড়, নাজিরপুর, সিংড়ার, বড়াইগ্রামের আহম্মেদপুর, তাড়াশের ধামাইচ, নাদোসৈয়দপুর, চাটমোহরের ছাইকোলা, অষ্টমনিষা,মির্জাপুর ভাঙ্গুড়ায় গড়ে উঠেছিল বড় নৌবন্দর। চলত রমরমা ব্যবসা-বানিজ্য।

কালের আবর্তমানে সেসব এখন শুধুই ইতিহাস।
গুরুদাসপুর নদী রক্ষা আন্দোলন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আতহার হোসেন, মজিবুর রহমান মজনু, এমদাদ মোল্লাসহ অনেকে জানান, চাঁচকৈড় হাট থেকে এক সময় নৌকায় করে শত শত মন ধান, পাট, গম সরিষাসহ চলনবিলের সকল কৃষিজাত পণ্য ঢাকা, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন মোকামে সরবরাহ হত।

আবার সেসব মোকাম থেকে নানা পণ্য এখানে এনে পাইকারি দামে বিক্রি করতো। কম খরচে সহজ লভ্য পরিবহন সুবিধা ভোগ করলেও এখন আর ওই সুবিধা তারা পান
না। এখন বছরের ৪ মাস নৌ পথে নৌকা চলাচল করতে পারে। অবশিষ্ট আটমাস কোন রকম নৌকা চলাচল করতে না পারায় আগের মত আর ব্যাবসায়িরা নৌপথে সহজে ব্যাবসা করতে পারছে না।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো