English|Bangla আজ ৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার সন্ধ্যা ৭:১৭
শিরোনাম
রাণীনগরে পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার ৯নাগেশ্বরীতে যতœ প্রকল্পকে কেন্দ্র করে হতদরিদ্রকে মারপিট করল মেম্বারমা-বাবা হারানো শিশু রফিকুলকে পুনরায় ইউএনওর কাছে হস্তান্তররাণীনগরে নতুন করে গমের শীষে স্বপ্ন বুনছেন কৃষককুড়িগ্রামে পুলিশের সহতায় বিপন্ন প্রাণি গন্ধগোকুল উদ্ধারসুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জনবল সংকটে চিকিৎসা সেবা বিঘ্নিতসাদুল্লাপুরে কৃষি ট্রেনিং সেন্টার নির্মাণ কাজের উদ্বোধননবীনগর মহেশ রোডের ধূলাবালিতে জনজীবন বিপর্যস্ত,দেখার কেউ নেই।কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেন উপজেলা চেয়ারম্যাননরসিংদীতে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষে রচিত ‘ইতিহাসের অগ্নিসন্তান’ নাটক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠিত

নাগেশ্বরীর চরাঞ্চলে ৫০বিঘা জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ

নাগেশ্বরী থেকে মোঃ মসলেম উদ্দিনঃ

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে। দুধকুমার নদীর তীর ধরে চাষ হয়েছে সুর্যমূখী ফুল। জানাগেছে ভাঙ্গামোড় এলাকার চাষী আব্দুর রাজ্জাক তৈল জাতীয় ফসল চাষাবাদ করে সাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখছে। কৃষক আব্দুর রাজ্জাক জানান এলাকার মানুষের খাবার তৈল হিসাবে অন্যান্য তৈলের উপর চাপ কমানোর জন্য এবং শরিষার বিকল্প উন্নত মানের তেলের জন্য আমি এই চাষ শুরু করেছি।

তিনি এই প্রথম বারের মত পরীক্ষা মুলক সূর্যমুখী ফুল চাষ করেছে আশানুরুপ ফলন হলে আগামীতে আরও ব্যাপক ভাবে ফুল চাষ করার পরিকল্পনা করছে। কৃষক বলেন এক বিঘা জমিতে প্রায় ৯ থেকে ১০মন বীজ উৎপাদন করা সম্ভব। এক বিঘা জমিতে খরচ হবে মোট তিন হাজার থেকে ৪হাজার টাক। ১কেজি বীজে প্রায় ৫০০গ্রাম তৈল হতে পারে।

এক বিঘা জমিতে উৎপাদন হবে প্রায় ১৫০ লিটার থেকে ১৭০ লিটার তৈল। প্রতি লিটার তৈল বাজার মুল্য সর্বোচ্চ ২৫০ টাকা। প্রতি মন বীজে । আব্দুর রাজ্জাক আশা করছে অন্যান্য ফসলের তুলনায় সূর্য়মুখী চাষ করে উন্নতমানের ভোয্য তৈল ও বীজ বিক্রি করে অধীক লাভবান হওয়ার আশা করছি।

কৃষক আব্দুর রাজ্জাক জানায় এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা শামসুজ্জামান ও কৃষি উপ-সহকারী কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম সুর্খমূখী চাষে উৎসাহ ও সার্বিক সহায়তা প্রদান করছে। উপজেলার নুনখাওয়া,বামনডাঙ্গা ভিতরবন্দ,হাসনাবাদ ইউনিয়নের সুর্যমুখী ফুলের চাষ হয়েছে। কৃষকগণ জানায় কৃষি অফিসের সহায়তা পেলে তারা আরও বেশি জমিতে সুর্যমুখী ফুলের চাষ করবে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা শামসুজ্জামান বলেন উপজেলার চরাঞ্চল সহ মোট ৫০ বিঘা জমিতে সুর্যমুখী ফুলের চাষ হয়েছে। নুনখাওয়ার কৃষক জাহাঙ্গীর আলম, নাজির হোসেন, আতাউর রহমান.সফিয়ার রহমান ও আব্দুস ছামাদ সুর্যমুখী ফুলের চাষ করছে।

নাজির হোসেন বলেন অফিস থেকে সার, বীজ পেয়েছি তবে চরাঞ্চলের জমিতে পানি থাকে না, সোলার প্যানেলের মাধ্যমে সেচের ব্যবস্থা হলে চরাঞ্চলে ব্যাপক ফুলের চাষ করে সাবলম্ভী হওয়া সম্ভব।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো