English|Bangla আজ ১৪ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার বিকাল ৫:৩৫
শিরোনাম
রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন, এস আই গোলাম মোস্তফা।নবীনগরে কুয়েত প্রবাসী ওবায়েদউল্লাহ নিজেস্ব অর্থায়নে দরিদ্রজনগোষ্ঠী মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরননবীনগরে ইয়াবাসহ একাধিক মাদক মামলার আসামি এম এস কে মাহবুব ও সাংবাদিক গ্রেপ্তার!গংগাচড়ায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে অটোরিকশা ছিনতাইয়ের চেষ্টা আটক – ১পাটগ্রাম থানা লালমনিরহাট জেলায় শ্রেষ্ঠ থানা নির্বাচিতনরসিংদীর শিবপুরে ৪০ দিন জামাতে নামাজ পড়ে পুরস্কার জিতে নিয়েছে ২০ কিশোরদিনাজপুর জেলা ছাত্রলীগ কর্মী’র মাক্স বিতরণচট্টগ্রামে তারাবি দিয়ে অর্ধশতাধিক গ্রামে একদিন আগেই রোজা শুরুধর্ষণের শিকার কিশোরি মা-বাবাকে নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেচাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করে ধ্রুবতারা সমাজ কল্যাণ ফাউন্ডেশন।

তাহিরপুর হাওরাঞ্চলে হাড়কাঁপানো শীত,বিপাকে দিনমজুর ও মৎস্যজীবীরা

আহাম্মদ কবির (সুনামগঞ্জ) তাহিরপুর

সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলার মেঘালয়ের পাদদেশে হাওরাঞ্চলে ঘন কুয়াশা এবং কনকনে ঠান্ডা বাতাসের সাথে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ চলছে।

এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কমতে থাকা তাপমাত্রা আর ঘন কুয়াশায় পৌষের এই হাড়কাঁপানো শীতে ঠকঠক করে কাঁপছে হাওর জনপদ। এ অবস্থায় স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি বিপাকে পড়েছেন দিনমজুর ও মৎস্যজীবীরা।

শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন ছিন্নমূল মানুষ। গত কয়েকদিন পূর্বে অসহায় শীতার্তদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করতে দেখা গিয়েছে উপজেলা প্রশাসন ও বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠন কে, কিন্তু সরকারি ও বেসরকারিভাবে শীতবস্ত্র বিতরণ করতে দেখা গেলেও এই হাওরাঞ্চলের নিম্নশ্রেণীর হতদরিদ্র শীতার্তদের পাশে দাড়াতে কাউকে দেখা যায়নি।

গতকাল (২৭ডিসেম্বর) সারাদিন ছিল হাড়কাঁপানো শীত। সকালে কুয়াশার চাদর ভেদ করে সূর্য উদিত হলেও তার তেজ তেমন একটা ছিলনা। দিনভর ছিল হিমেল বাতাসে শীতের দাপট। সন্ধ্যায় বাড়তে থাকে ঠাণ্ডা।

রাত্রে আবার ঘুরি ঘুরি বৃষ্টি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হননি। হাট-বাজারেও লোকজনের সমাগম ছিল কম। এদিকে বোরো চাষাবাদের মৌসুমে এমন অবস্থায় আরেক নতুন শঙ্কায় পড়েছেন কৃষকরা।

উপজেলার সবকটি হাওরে বোরো ধানের আবাদ শুরু হয়েছে।
এমতাবস্থায় গরম কাপড়ের অভাবে চরম দুর্ভোগে পড়েছে হাওড়াঞ্চলের নিম্নশ্রেণীর হতদরিদ্র মানুষেরা।কাজে যেতে না পারায় দুর্ভোগ বেড়েছে দিনমজুর ও মৎস্য আহরণকারী মানুষেরা। শীত নিবারনের উপায় না থাকায় নাজেহাল হয়ে পড়েছে এই এই পেশায় নিয়োজিত মানুষেরা। জানাযায় এই হাওরাঞ্চলে ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত হতেও দেখা দিয়েছে।

উপজেলার হাওর পাড়ের জয়পুর গ্রামের কৃষক কপিলনুর মিয়া বলেন আমার দুই কেয়ার জমি হালচাষ করে রেখেছি কয়েকদিন যাবৎ, রোপণ করার জন্য, কিন্তু কয়েকদিন ধরে এই হাড়কাঁপানো শীতের জন্য জমিতে কাজ করতে পারছি না।প্রচন্ড ঠান্ডা ঘর হতে বাহির হতে পারছিনা।

এছাড়াও উপজেলার হাওর পাড়ের বিভিন্ন গ্রামের একাধিক মৎস্যজীবী ও দিনমজুর মানুষেরা জানান কয়েকদিন যাবৎ প্রচন্ড শীত থাকায় তারা ঘর হতে বাহির হতে না পারায় আয় রোজগার করতে না পারায় ছেলেমেয়েদের নিয়ে বিভিন্ন সমস্যায় রয়েছেন, এদের মধ্যে কেউ কেউ আবার রয়েছে শীত বস্ত্রহীন অর্থের অভাবের কারণে গরম কাপড় কিনতে না পারায় রয়েছে বিভিন্ন সমস্যায়।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো