English|Bangla আজ ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার রাত ১:৪০
শিরোনাম
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে লাউডোব ইউনিয়ন আ’লীগের আলোচনা সভা:নবীনগরে মুজাক্কির হত্যার বিচার চেয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন নবীনগর থানা প্রেসক্লাব।নওগাঁয় সকালে তালিকা থেকে বাদ ॥ দুপুরে মৃত্যু ॥ বিকেলে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন ॥ এলাকায় আলোচনার ঝড়পলাশবাড়ীতে প্রমীলা প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিতবান্দরবা‌নে ভাল্লুকের আক্রমণে আহত ৩ফুলছড়ির চরের ভুট্রাক্ষেত থেকে যুবতীর লাশ উদ্ধারহারাগাছ পৌর নির্বাচনে শেষ মুহূর্তে জোড় প্রচারে আ.লীগের মেয়র প্রার্থীচরফ্যাশন পৌর নির্বাচনে শেষ মুহুর্তে প্রচার প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরাফুলছড়িতে ভূমি অফিস নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করলেন-ডেপুটি স্পীকারখানসামায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য গীতা বিদ্যালয় উদ্বোধন।

তালতলীতে বিদ্যুৎ কর্মসূচি সংযোগে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে দালাল চক্র

মোঃ সানাউল্লাহ, বরগুনা প্রতিনিধি :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ, এই স্লোগানকে সামনে রেখে দেশ ব্যাপি গ্রামগঞ্জে চলছে পল্লী বিদ্যুৎ সংযোগ কাজ। সরকার কর্তৃক বিনামূল্যে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার কর্মসূচী থাকলেও দালাল চক্রের দ্বারা ঘটছে তার বিপরীত।

বরগুনা জেলার তালতলী উপজেলার ৭নং সোনাকাটা ইউনিয়নের কবিরাজপাড়া গ্রামের আব্দুল আজিজ ফকিরের পুত্র মো: নুরুল ইসলাম, মোঃ আঃ ছালামের পুত্র মোঃ নজরুল ইসলাম এবং মোঃ আমজেদ ফকিরের ছেলে জলিল ফকিরের বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার কথা বলে শত শত পরিবারের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা চাঁদা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ভুক্তভোগী এলাকাবাসী জানান পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ দেয়ার নামে জলিল ফকিরের নেতৃত্বে কবিরাজপাড়া গ্রামের দক্ষিন ও উত্তর পার্শ্বের প্রায় তিনশতাধিক পরিবারের কাছ থেকে কয়েক দফায় ৪০০০-৫০০০ টাকা করে আদায় করেছে। বিদ্যুৎ লাইন পাস করানোর নামে প্রথমে দুই থেকে তিন হাজার টাকা করে নিয়েছেন প্রায় দুই বছর আগে। আবার বাড়ি বাড়ি বিদ্যুতের খুটি বসাতে, খুটি থেকে বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ ও মিটার পাশ করার নামে নেওয়া হচ্ছে টাকা। দাবীকৃত চাদা না দিলে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হবে না বলে দালাল চক্র বিভিন্নভাবে গ্রাম বাসীকে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।

কবিরাজপাড়া গ্রামের চিরু বরু, ফরিবা বেগম, মরিয়ম বেগম, ফুলবানু, নাজমা, হামিদা বেগম, গোলবানু, মোঃ নাসির, আফজালসহ আরও অনেকে বলেন আমরা আমাদের এলাকার দুইশতাধিক ঘরের বিদ্যুৎ বাবদ ৪০০০-৫০০০ টাকা করে নুরুল ইসলামকে দিয়েছি।

দুই বছর হল বিদ্যুতের দেখা নাই। একই এলাকার মুদি দোকানদার মোঃ জাফর হাওলাদার বলেন আমরা সমুদ্র তীরবর্তী বাসিন্দা তাই সরকারের উন্নয়নগুলো আমাদের এখানে এখনও পৌছায়নি। আমাদের এলাকার বেশিরভাগ মানুষ জেলে (মাছ ধরার ট্রলারে কাজ করে) কৃষক, দিনমজুর বিধায় নিত্তান্ত অভাবী। কোন রকম খেয়ে পরে বেচে আছি।

বিদ্যুৎ দিবে বলে আমাদের কাছ থেকে নুরুল ইসলাম ৪০০০-৫০০০ টাকা করে কয়েক দফায় দফায় নিয়েছে। লাইন পাশ করার জন্য গত প্রায় দুই বছর পূর্বে ২০০০-৩০০০ টাকা করে নিয়েছে, লাইন স্থাপনের সময় ঘর পর্যন্ত লাইন দেওয়াতে ৫০০-৭০০ টাকা করে নেয় এবং মিটারের জন্য ৭০০-৯০০ টাকা নিয়েছে। যা আমরা নিরুপায় হয়ে দিয়েছি।

বর্তমানে মিটার আসায় মিটার স্থাপনের জন্য পুনরায় ২০০ টাকা করে গ্রাহক প্রতি দাবী করছে। টাকা না দিলে মিটার স্থাপন করবে না বলে জানায় অভিযুক্ত নুরুল ইসলাম ও নজরুল ইসলাম।
এ বিষয় অভিযুক্ত নুরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি টাকা উঠানোর বিষয়টি অকপট স্বীকার করে বলেন পাশ্ববর্তী গ্রামের মোঃ আমজেদ ফকিরের ছেলে জলিল ফকিরের নেতৃত্বে আমি ও মোঃ আঃ ছালাম এর পুত্র মোঃ নজরুল ইসলাম মিলে ০২টি লড থেকে টাকা উত্তোলন করি।

কবিরাজপাড়া উত্তর ১নং লডে প্রায় ১৩০ গ্রাহক, কবিরাজপাড়া দক্ষিন ২নং লডে প্রায় ১৫৬ গ্রাহক মোট গ্রাহক সংখ্যা প্রায় ২৮৬ গ্রাহকের কাছ থেকে টাকা উত্তোলন করি জলিল ফকিরের নেতৃত্বে। গ্রাহক প্রতি ৪০০০-৫০০০ টাকা করে নেইনি, ২০০০-৩০০০ টাকা করে তুলেছি। তিনি আরও বলেন এলাকায় নতুন বিদ্যুৎ আনতে আমাদের অনেক ক্ষেত্রে টাকা খরচ হয়। যেটা আপনাদের বলে বোঝানো সম্ভব না।

এ বিষয় অভিযুক্ত নজরুল ইসলামের কাছে টাকা উত্তোলনের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি ৪০০০ টাকা করে উত্তোলন করিনি। গ্রাহকে আর্থিক অবস্থা বুঝে যে যা দিতে পারছে তাই নিয়েছি। টাকা কেন উত্তোলন করা হয়েছে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন জলিল ফকির উত্তোলন করতে বলেছেন তাই উত্তোলন করে টাকা তাকে দিয়েছি। এ বিষয় জলিল ফকিরের মুঠো ফোনে ফোন দিয়ে পরিচয় দিলে তিনি কথা না বলে লাইটি কেটে দেন।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কলাপাড়া এর ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার শহিদুইল ইসলাম বলেন, সরকার নির্ধারিত মিটার ফি ৪৫০ টাকার অতিরিক্ত কোন টাকা নেয়া হয় না। যদি কেউ এর অতিরিক্ত টাকা নেয় তাহলে অভিযোগ দিলে আমরা ব্যবস্থা নেবো।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো