English|Bangla আজ ২৩শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার রাত ৩:১৭
শিরোনাম
সাপাহারে খোট্টা পাড়া সরিষাভাঙ্গা মেশিনের ফিতার সাথে জড়িয়ে যুবকের মৃত্যু।বান্দরবানে ১৫০ শিক্ষার্থীকে দেয়া হলো বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা সহায়ক বইবান্দরবানে ত্রিমুখী সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ৬মুরাদনগরে মনিরুল আলম দিপুর উদ‍্যোগে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণবিদ্যুতপৃষ্টে চাচা ভাতিজার মৃত্যুতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলেন।ইউএনও একরামুল ছিদ্দিকমুজিববর্ষে পত্নীতলায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার বাড়ি পাচ্ছেন ১১৪ টি ভূমিহীন পরিবারশ্রীমঙ্গলে আগামী কাল গৃহহীনদের জন্য নবনির্মিত ৩শত ঘর উদ্বোধন করা হবে আগামীকালপিএইচডি কর্তৃক চরফ্যাশনে মা ও কিশোর-কিশোরী সমাবেশ অনুষ্ঠিতচিলমারীতে জ্বালানী তেল সরবরাহ এবং ডিপো স্থাপনের দাবীতে মানববন্ধনচিলমারীতে পাট গুদামে আগুন, লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি

চট্টগ্রামে এএসপি পরিচয়ে বিয়ে, গ্রেফতার ছাত্রলীগ নেতা

মোহাম্মদ আলী রাশেদ, নিজস্ব প্রতিনিধি চট্টগ্রাম :

ফেসবুকে সম্পর্ক গড়ে মিথ্যা পরিচয় দিয়ে বিয়ে এবং অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় আকিবুল ইসলাম নামে এক ছাত্রলীগ নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার (৬ জানুয়ারি) নগরীর বাকলিয়া থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হওয়া আকিবুল ইসলাম চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে আছেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) পরিচয় দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে এক নারীকে বিয়ে ও অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। ভুয়া নাম পরিচয় ব্যবহার করে এ ছাত্রলীগ নেতা ২৩ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে ও অভিযোগ করা হয়।

গ্রেফতার হওয়া আকিব চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার হাইলধর ইউনিয়নের খাসখামা গ্রামের নুরুল আবছারের ছেলে আকিব। তার দলীয় পরিচয় নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম বোরহান উদ্দিন।

সোমবার সকালে আকিবের বিরুদ্ধে মামলা করে এক নারী। ওই নারীর বাড়ি আনোয়ারা উপজেলায়।

ওই নারী মামলায় অভিযোগ করেন, ২০১৯ সালের ৩ জুলাই স্বামীর সঙ্গে তার বিচ্ছেদ হয়। এরপর দুই মেয়ে নিয়ে তিনি আলাদা থাকতে শুরু করেন। এসময় তাহসান খান পিজন নামে ফেসবুক আইডি থেকে বন্ধুত্বের আহ্বান জানানো হয়। এএসপি পরিচয় দিয়ে কথা শুরু হয়। পরিচয়ের একপর্যায়ে তাহসান বিয়ের প্রস্তাব দেয় এবং তিনি রাজি হন। ওই বছরের ৭ আগস্ট তারা বিয়ে করেন। নিকাহনামায় তার নাম ‘তাহসান খান আকিব’ এবং বাবার নাম মো. আশরাফ খান, মাতা- মোছা. আসমা খানম উল্লেখ করা হয়। ঠিকানা লেখা হয়- নগরীর কোতোয়ালি থানার জামালখানে খান ম্যানশনে।

বিয়ের পর তারা একসঙ্গে স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বিভিন্ন হোটেলে রাতযাপন করেন এবং শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন। পরে বাকলিয়ার ডিটি রোডে ওই নারীর ভাড়া নেয়া বাসায়ও তারা একইভাবে রাতযাপন করেন। কিন্তু নিজের বাসায় তুলে নিতে বললে তাহসান নানা টালবাহানা শুরু করে। এর মধ্যে সে বিভিন্ন সময় নারীর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়।

গ্রেফতার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বাকলিয়া থানার ওসি নেজাম উদ্দিন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো