English|Bangla আজ ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার সকাল ৮:৪১
শিরোনাম
সাপাহারের জবাই বিলে পরিযায়ী পাখি সংরক্ষনে অভয়াশ্রম প্রয়োজনআগৈলঝাড়ায় মুজিব বর্ষ উপলে ৪০ দলের অংশ গ্রহনে ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধনচসিক নির্বাচন” নৌকার পক্ষে গণসংযোগে ফটিকছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যাননেত্রকোণা জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ হাত্রাপাড়ার কৃতী সন্তান তাজুল ইসলামস্মৃতি এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় উপজেলা ছাত্রলীগ নেতাদের দোয়া মাহফিল ও খাদ্য বিতরণবান্দরবান শহরে অগ্নিকাণ্ডে বসতঘর আগুনে পুড়ে ছাইকুড়িগ্রামে স্ত্রী‌কে হত‌্যার ঘটনায় স্বামী বকুলের ফাঁ‌সি‌র আ‌দেশমিথ্যা মাদক মামলায় ফাঁসানোর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলনঘাটাইলে ঘোড়াদৌড় দেখতে গিয়ে নিখোঁজ|| তিনদিন পর লাশ উদ্ধারঘাটাইলে বঙ্গবন্ধু অনলাইন ঐক্য পরিষদের উপদেষ্টা হলেন কাজী আরজু

আনোয়ারায় খাবার নিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠানে মারামারি, ফিরে গেল কনে ছাড়া বর

আনোয়ারায় খাবার নিয়ে বরপক্ষের সাথে কনে পক্ষের কথাকাটাকাটির জের ধরে বিয়ের অনুষ্ঠানে উভয় পক্ষের মারামারিতে পন্ড হয়ে গেছে বিয়ে। এতে উভয় পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। গতকাল শনিবার ( ১৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে উপজেলার সরকার হাট আল আমিন কমিউনিটি সেন্টারে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, শনিবার আনোয়ারা উপজেলার মহতর পাড়া গ্রামের রবিউল হোসেনের ছেলে রুবেলের সাথে বাঁশখালি উপজেলার বেলগাঁও গ্রামের আবদুল মোতালেবের মেয়ে শাবনুর আকতারের বিয়ের দিন ধার্য ছিল। বিয়েতে বরপক্ষের ২৫০ জন লোককে খাওয়ানোর কথা ছিল। দুপুরের আগে আসা বরপক্ষের লোকজনকে খাওয়ানো হয়। দুপুরের পরে আসা লোকজনকে বরের সাথে একত্রে খাওয়ানোর জন্য খাবার দেয়া হয়নি।

পরে সাড়ে তিনটার দিকে বর কমিউনিটি সেন্টারে উপস্থিত হলে বর এবং বরের মায়ের জন্য খাবার টেবিল সাজানো হয়। তখন দুপুরের পরে আসা লোকজন এবং বরের সাথে আসা লোকজন খাবার টেবিলে বসে পড়ে। এদৃশ্য দেখে কনে পক্ষের লোকজন বলতে শুরু করে ১৯ টেবিলে ২২৮ জন বরপক্ষের লোকজন খাওয়ানো হয়েছে।

ওদের বাকী আছে ২৮ জন কিন্তু নির্ধারিণ সংখ্যার চেয়ে বরপক্ষের লোকজন অনেক বেশি হয়ে গেছে। সুতরা বরের সাথে ২২ জনকে খাবার দিয়ে বাকীদের খাবার টেবিল থেকে তুলে দেন। এ কথা বলার পর দুপক্ষের মধ্যে লেগে যায় তুমুল বাকবিতন্ডা। তখন একপর্যায়ে বরের ছোট ভাই সোহেল লোকজন নিয়ে কনে পক্ষের এক লোককে মারধর শুরু করলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে উভয়পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আনোয়ারা থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মারামারির ঘটনার পর কনেপক্ষ বরের হাতে কন্যাকে আর তুলে দেয়নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আনোয়ারা থানার এসআই শামসুজ্জামান বলেন, এ ঘটনা নিয়ে কোন পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ করেনি। ১৮ তারিখ উভয় পক্ষ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে বসে ঘটনার মীমাংসা করবেন।

সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো